সমাজের ক্ষত চেনায়।

Desh|May 2, 2020

সমাজের ক্ষত চেনায়।
সাসপেন্স থ্রিলারের আদল রেখেও চাপা স্বরে এই নাটক লুম্পেন সময় আর নারীর মরিয়া ক্রোধের কথা বলে।

একটি প্রযােজনার তিনটি মূল সুর কাহিনির চলন, নাটকের স্ক্রিপ্ট এবং সামগ্রিক নাট্যনির্মাণ— এগুলি যদি সঠিক ঐকতান সৃষ্টি। করতে পারে তা হলে দর্শকের কাছে প্রযােজনাটি এক স্মরণীয় অভিজ্ঞতা হয়ে থেকে যায়। বাংলা থিয়েটারের মঞ্চে এই ত্র্যহস্পর্শ যােগ খুব কমই ঘটে। তাই রঙরূপ-এর নবতম উপস্থাপনা ‘গরল’-এ এই তিন বৈশিষ্ট্যের সুসম্মিলন এক দুর্লভ প্রাপ্তি। এই যােগ ঘটিয়েছেন কাহিনিকার সায়ন্তনী পূততুণ্ড, নাটককার মৈনাক সেনগুপ্ত আর নাট্যকার সীমা মুখােপাধ্যায়।

বিগত দিনের সামন্ততান্ত্রিক ব্যবস্থায় লালিত জমিদারতন্ত্রে নারীর ওপর সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক এবং সর্বোপরি শারীরিক নির্যাতনের অধিকার পুরুষকে করে তুলেছিল এক সর্বশক্তিমান দেবতা। আজ সেই জায়গা। নিয়েছে লুম্পেন রাজনীতি। ধর্ষণের ঘটনা আজ নিত্যদিনের সংবাদ হয়ে দাঁড়িয়েছে এবং তার পেছনে লুকিয়ে থাকে ক্ষমতাতন্ত্রের আস্ফালন। বর্তমানের প্রেক্ষিতে রচিত এই কাহিনি তেমনই এক রেপের । কথা বলে । এক পড়ে যাওয়া জমিদার বাড়ির সদ্য তরুণ মধ্য রাতে রাস্তায় দেখতে পাওয়া একটি মেয়েকে রেপ করে খুন । যেখানে আছেন তার বৃদ্ধ , এখন অথর্ব, উকিল বাবা আর সংসার সামলানাে দৃঢ় মনের মা । এবং আছেন এক বৃদ্ধ অনুগত পরিচারক, যিনি একসময়ে ওই জমিদার বাড়ির লেঠেল ছিলেন । তাঁর স্ত্রীকে কিছু ক্ষমতাবানের ছেলেপুলে বলাৎকার করে খুন । করেছিল । সেই মামলায় এই মনিবই সেই ধর্ষণকারীদের বেকসুর খালাস করে এনেছিলেন । এবারও বাৎসল্য স্নেহ আর বুর্জোয়া মানসিকতায় বৃদ্ধ তাঁর প্রতিক্রিয়াশীল মনােবৃত্তিরই প্রকাশ ঘটান । কিন্তু মা তাঁর বাৎসল্য স্নেহকে সীমিত রাখেন ছেলের ছােটবেলাকার সুচারু গুণগুলির স্মৃতিতে যাপনের মধ্যে । এবং মাতৃস্নেহেরই আর এক চরম প্রকাশ ঘটান পরিশেষে ।

articleRead

You can read up to 3 premium stories before you subscribe to Magzter GOLD

Log in, if you are already a subscriber

GoldLogo

Get unlimited access to thousands of curated premium stories and 5,000+ magazines

READ THE ENTIRE ISSUE

May 2, 2020