সিন্ধু নদ
Sukhi Grihakon|August 2020
সিন্ধু নদ
ভারতীয় সংস্কৃতিতে নদীকে ভগবান হিসেবে পূজা করা হয়। নদীর তীরে গড়ে ওঠেসভ্যতা, তাই বোধহয় এইরীতি। লিখেছেন পূর্বাসেনগুপ্ত।

ভারতীয় সভ্যতার রন্ধ্রে রন্ধ্রে যে নদীর স্রোত বহমান সেই স্রোতস্বিনী নদীর নাম সিন্ধু! সিন্ধু শব্দের অর্থ সাগর। সেই কারণেই এই প্রবাহিকার নাম ‘ সিন্ধু’ রেখেছিলেন ঋষিরা। সিন্ধুনদীর অববাহিকাতেই গড়ে উঠেছিল বৈদিক সভ্যতা, সনাতন ধর্ম। এখানেই ঋষিকুল যজ্ঞকার্য সৃষ্টি করেছিলেন। এই মহান নদী হৃদয়ভরে শুনেছিলেন মন্ত্র উদগাতাদের মুখ নিঃসৃত অপূর্ব বেদধ্বনি! গড়ে উঠেছিল হরপ্পা মহেঞ্জোদরাের মতাে উন্নত নগর। খ্রিস্টপূর্ব ৩৩০০-১৩০০, এই সময়ই সিন্ধুনদীর তীরে সিন্ধু সভ্যতার জন্ম। সিন্ধুনদ মানস সরােবর থেকে উৎপন্ন! ব্রহ্মার মন থেকে জাত এই সরােবর হিন্দুদের কাছে বিশেষ করে শিব ভক্তদের কাছে অতিপবিত্র। কারণ এই পবিত্র সরােবরের তীরেই কৈলাস, শিবের বাসভূমি। সিন্ধুনদী মানস সরােবর থেকে উৎপন্ন হয়ে লাদাখ অঞ্চল দিয়ে হিন্দুকুশ পর্বত ভেদ করে দক্ষিণ দিকে প্রবাহিত হয়ে অবশেষে আরব সাগরে গিয়ে মিলিত হয়েছে। এই নদীপথ ধরেই একদিন ভারত বিজয়ের জন্য এসেছিলেন গ্রিক রাজা আলেকজান্ডার। এসেছিলেন মােগল সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা বাবর, আরও কত শত জাতি! এসেছিলেন জ্ঞানী মেগাস্থিনিস, হেরােডােটাসের মতাে পরিব্রাজকগণ! শােনা যায় গ্রিক যােদ্ধাগণ সিন্ধু শব্দের ‘স’ বর্ণটি উচ্চারণ করতেন ‘হ’ হিসেবে। তাদের উচ্চারণে সিন্ধু শব্দটি হয়েছিল হিন্দু। সেই থেকে সিন্ধু তীরবর্তী জনপদের মানুষেরা “হিন্দু’ শব্দে চিহ্নিত হন। সনাতনধর্মের অনুসরণকারী ভারতীয়রা ‘হিন্দু ধর্মীয় বলে চিহ্নিত হন।

articleRead

You can read up to 3 premium stories before you subscribe to Magzter GOLD

Log in, if you are already a subscriber

GoldLogo

Get unlimited access to thousands of curated premium stories, newspapers and 5,000+ magazines

READ THE ENTIRE ISSUE

August 2020