সত্যপ্রসাদের পণ
Sukhi Grihakon|August 2020
সত্যপ্রসাদের পণ
ভীষ্মদেব পণ করেছিলেন ছাদনাতলায় যাবেন না কোনও |

দিনও, অবিবাহিত থাকবেন আজীবন। তাই বর্ণিত আছে মহাভারতে। পণ করেছিলেন পিতার সম্মান রক্ষার্থে। অথবা পিতাশ্রী রাজা শান্তনুকে বিবাহ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েও শর্ত বাগিয়ে বসা সত্যবতীর মুখপানে চেয়ে। আমাদের সত্যপ্রসাদ তেমনি এ যুগের আরেক ভীষ্ম। পৌরাণিক ভীষ্মদেবের ভিন্নতর সংস্করণ। সেও পণবন্দি। অর্থাৎ মােক্ষম পণ করে বসে আছে একটি। স্বেচ্ছায় নয় মােটেই, পিতামহ ভীষ্মদেবের মতনই গেরােয় পড়ে। কোলে-পিঠে করে মানুষ করা একমাত্র ভাইটি যেদিন পাড়ার বুচিকে নিয়ে ঘরে ঢুকল, মােদ্দা কথা সেইদিনই রাত্তিরে বালিশে মাথা রেখে মনে-মনে প্রতিজ্ঞাটি শানিয়েছিল। তার মনে হয়েছিল। নারীমাত্রেই প্রলুব্ধকারিণী, ছলনাময়ী। তারা পুরুষজাতিকে তার পারিবারিক, সামাজিক সম্মান রক্ষা করতে দেয় না। মাকড়সার জালের মতাে মােহজালে আবদ্ধ করে ওরা পুরুষজাতিকে। এরপর বােধ-বুদ্ধি লুপ্ত করে দিয়ে উন্মত্ত করে তােলে ! তাই ধিক্‌, এই প্রজাতির প্রতি! কোনওদিনও এদের মােহগর্তে পা গলাব না। নেভার। এমন প্রতিজ্ঞা করে বসার দ্বিতীয় কারণও রয়েছে বটে, সে পরে বলছি।

তবে সত্যপ্রসাদের প্রতিজ্ঞাটি স্বয়ং ভীষ্মদেবের মতনই চির অটল, অনড়। একচুল নড়েনি-চড়েনি আর। টইটই করে এই চল্লিশের চৌকাঠে পা দিতে চলল সত্যপ্রসাদ। না, এখনও পর্যন্ত কণামাত্র টলমল ভাব নেই ওর। ব্যাপারটা সকলের কাছেই বিস্ময়কর। তেমনি ঐতিহাসিক। কেননা, দত্তপাড়ার একজনও ওই বয়েসি পুরুষ নেই, যিনি অবিবাহিত। একজনই ভীষ্মভীষ্ম ভাব দেখাতে যাচ্ছিলেন বটে, স্কুলমাস্টার রঞ্জন উপাধ্যায়, আপাতত তিনিও লটকেছেন। জড়িয়েছেন তাঁরই স্কুলের এক মহিলা শিক্ষিকার জালে। অতঃপর আটচল্লিশে সানাইয়ের পোঁ।

articleRead

You can read up to 3 premium stories before you subscribe to Magzter GOLD

Log in, if you are already a subscriber

GoldLogo

Get unlimited access to thousands of curated premium stories, newspapers and 5,000+ magazines

READ THE ENTIRE ISSUE

August 2020