করােনা চিকিৎসায় প্লাজমা থেরাপি

Grihshobha - Bangla|June 2020

করােনা চিকিৎসায় প্লাজমা থেরাপি
এখনও আবিষ্কার হয়নি কোভিড ১৯-এর ভ্যাকসিন। তাই চলছে প্লাজমা থেরাপির প্রয়ােগ। কিন্তু কী এই থেরাপি? কতটাই-বা সাফল্য আসছে এই থেরাপিতে? রইল তারই বিবরণ। লিখছেন সুরঞ্জন দে।

সারা পৃথিবীতে বাড়ছে করােনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। তাই, আক্রান্তদের বাঁচানাের জন্য মরিয়া চেষ্টাও জারি রেখেছেন ভাইরােলজিস্টরা। তারা মাধ্যম করছেন নতুন-নতুন গবেষণার। এরই মধ্যে কার্যকরি ভূমিকা নিয়েছে প্লাজমা থেরাপি। করােনা ভাইরাসে যারা গভীর ভাবে আক্রান্ত, তাদের সুস্থ করে তােলার তাগিদে চলছে প্লাজমা থেরাপির প্রয়ােগ।

Stem Rx বায়ােসায়েন্স সলিউশন প্রাইভেট লিমিটেড-এর রিজেনারেটিভ মেডিসিন রিসার্চার ডা. প্রদীপ মহাজন এই প্রসঙ্গে জানিয়েছেন, প্লাজমা থেরাপি নতুন কিছু নয়। সার্স ভাইরাস, মিডল ইস্ট ভাইরাস, ইবােলা, এইচ ওয়ান, এন ওয়ান প্রভৃতির থেকে বাঁচতেও এই প্লাজমা থেরাপির প্রয়ােগ করা হয়েছে আগে এবং সাফল্যও পাওয়া গেছে। এমনকী, যারা করােনা ভাইরাসে আক্রান্ত, তাদেরকেও সুস্থ করে তােলার চেষ্টা করা হচ্ছে প্লাজমা থেরাপির মাধ্যমে। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে, যেখানে ব্যাপক করােনা সংক্রমণ ঘটেছে, সেই সব দেশে করােনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়া মুমূর্ষদের প্লাজমা থেরাপির প্রয়ােগে অনেকটাই সাফল্য পাওয়া গেছে। এই খবর ছড়িয়ে পড়ার পর, আমাদের

ভারতবর্ষেও করােনা আক্রান্ত রােগীদের বাঁচাতে প্লাজমা থেরাপিকে মাধ্যম করছেন অনেক চিকিৎসক।

আসলে আমাদের শরীরে ইমিউনিটি সিস্টেম বা রােগ প্রতিরােধের প্রক্রিয়াটি কাজ করে দু’ভাবে। একটা হালকা ভাবে, আর অন্যটা কাজ করে গভীর ভাবে। অর্থাৎ, শক্তিশালী ভাইরাসের হাত থেকে রক্ষা পেতে হলে জোরদার রােগ প্রতিরােধ ক্ষমতা বা হার্ড ইমিউনিটি পাওয়ার থাকতে হবে। চিকিৎসা পরিভাষায় তাই ইমিউনিটি সিস্টেমকে দু’টি অংশে ভাগ করা হয়েছে। একটিকে বলা হয় ইনেট ইমিউনিটি, আর অন্যটি হল অ্যাডাপ্টিভ ইমিউনিটি।

ইনেট ইমিউনিটি : ক) সাধারণ জীবাণুনাশক। খ) ত্বকের উপরিতলে জীবাণু ধ্বংস করে। গ) মিউকাস মেমব্রেন-এ রােগ প্রতিরােধ করে।

articleRead

You can read up to 3 premium stories before you subscribe to Magzter GOLD

Log in, if you are already a subscriber

GoldLogo

Get unlimited access to thousands of curated premium stories and 5,000+ magazines

READ THE ENTIRE ISSUE

June 2020