দক্ষ হাতে সামলান বাচ্চার বায়না।
দক্ষ হাতে সামলান বাচ্চার বায়না।
নিজের জেদ বজায় রাখতে বাচ্চা যদি উগ্র স্বভাবের হয়ে ওঠে তবে তাকে সঠিক দিশায় আনতে মা বাবাকেও নিতে হবে মানসিক প্রস্তুতি, কিন্তু কীভাবে, জানাচ্ছেন রুমা চৌধুরি।

আমার বান্ধবী অর্চনা দুই সন্তানের মা। ওর দুই ছেলে-মেয়েই খুব স্মার্ট, ভালাে স্কুলে পড়ে, পড়াশােনাতেও ভালাে। কিন্তু অর্চনার হাজার নালিশ বাচ্চাদের নিয়ে। সবসময় ওদের বায়না সহ্য করতে হয় ওকেই কারণ ওর বরকে কাজের জন্য বাইরে বাইরেই থাকতে হয়। ওর বক্তব্য বাচ্চারা সবসময় কিছু না কিছু চেয়ে বসে। সেটা যদি পূরণ করা না হয় তাহলে তারা রেগে গিয়ে চাচামেচি শুরু করে দেয়। এমনকী খিদের মুখে অথবা ঘুম ঠিকমতাে না হলে ওরা আরও বেশি বায়নাবাজ হয়ে ওঠে।

বাচ্চার বায়নাক্কা বেশিরভাগ অভিভাবকদেরই মাথাব্যথা, অবসাদ, চিন্তা এবং ফ্রাস্ট্রেশন এর কারণ হয়ে দাঁড়ায় । বাচ্চাকে কন্ট্রোলে রাখা এইক্ষেত্রে খুব সহজ কাজ নয় ।

বায়না করতে করতে বাচ্চারা রেগে ওঠে । কোনওভাবে, বড়ােদের দিয়ে নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে নিতে বদ্ধপরিকর হয়ে ওঠে । তারজন্য রাগ দ্যাখানাে থেকে শুরু করে ফ্রাস্ট্রেশন, কেঁদে ভাসানাে, চাচানাে, জিনিসপত্র ভাঙা, মাটিতে শুয়ে পড়া, পালিয়ে , নিঃশ্বাস আটকে রাখা, বমি করে দেওয়া এমনকী অজ্ঞান হয়ে যাওয়ার অভিনয় করতেও তারা দ্বিধা করে না ।

সাধারণত এক দেড় বছর থেকে শুরু করে তিন চার বছর বয়সি বাচ্চাদের মধ্যে ট্যানট্রাম এর সমস্যা বেশি দেখা যায় । কারণ এই বয়সে বাচ্চার সােশ্যাল এবং ইমােশনাল স্কিলস ডেভেলপ হওয়া শুরু হয় । ইমােশনকে প্রকাশ করার মতাে শব্দ তাদের জানা থাকে না । তারা স্বাধীন হতে চায় অথচ অভিভাবকদের থেকে দূরে । যেতেও ভয় পায় । এই পরিস্থিতিতে বাচ্চা এমন রাস্তা খুঁজে বার । করতে চায় যার মাধ্যমে নিজের আশেপাশের জগৎ কে সে । বদলাবার চেষ্টা করতে পারে আর নিজের দাবিও মানাতে পারে ।

বাচ্চার ট্যানট্রাম দেখানাের প্রধান কারণ টেম্পারমেন্ট : যে বাচ্চা খুব তাড়াতাড়ি আপসেট হয়ে পড়ে তারাই বেশি বায়না করে অশান্তি বাড়ায় ।

articleRead

You can read upto 3 premium stories before you subscribe to Magzter GOLD

Log-in, if you are already a subscriber

GoldLogo

Get unlimited access to thousands of curated premium stories and 5,000+ magazines

READ THE ENTIRE ISSUE

February 2020